রোগ নিরাময় ও শারীরিক সুরক্ষায় স্পিরুলিনা ক্যাপসুল

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on pinterest

আজ এমন একটি শৈবালের অসাধারণ গুণের কথা বলবো, যা জনপ্রিয় ফুড সাপ্লিমেন্ট বা স্পিরুলিনা ক্যাপসুল হিসেবে সারা বিশ্বের মানুষের কাছে সমাদৃত।

অতুলনীয় নীলাভ সবুজ বর্ণের শৈবালটি হলো স্পিরুলিনা। স্পিরুলিনার মূল কার্যকারিতার কারণ ক্যালসিয়াম। স্পিরুলান এবং সবুজ রঙের রঞ্জক পদার্থ ফাইকোসায়ানিন ক্যালসিয়াম স্পিরুলান হলো পলিস্যাকারাইড। যা ভাইরাস প্রতিরোধে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। ফাইকোসায়ানিন গুরুত্বপূর্ণ এন্টি-অক্সিডেন্ট। আর স্পিরুলিনা আয়রন, প্রোটিন, ভিটামিন ও মিনারেলের মহা উৎস।

স্পিরুলিনা ক্যাপসুল

স্পিরুলিনা রক্তকণিকা তৈরির মাধ্যমে রক্তশূন্যতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। রক্তে ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কমিয়ে হার্টকে রাখে সুস্থ। এই অতুলনীয় শৈবালটি শরীর থেকে ক্ষতিকর ফ্রি র‌্যাডিক্যাল অপসারণ করে লিভারের সুরক্ষা নিশ্চিত করে।

এটি যেহেতু এন্টি-অক্সিডেন্টের মহা উৎস, তাই নিয়মিত সেবনে ত্বক থাকবে সজীব ও সুস্থ। আর চেহারায় বার্ধক্যের ছাপ সহজে পড়বে না। তাই জাপান, আরব দেশ, ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রে এর চাহিদা দিন দিন বাড়ছে।

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য স্পিরুলিনা আশীর্বাদস্বরূপ। আর যারা অতিরিক্ত ওজন কমাতে চান তারা ব্যায়াম ও ইয়োগার পাশাপাশি এই স্পিরুলিনা ক্যাপসুল ব্যবহার করতে পারেন। ইমিউনিটি বুস্ট আপের এর ভূমিকা অসাধারণ। ভেজিটেরিয়ানদের জন্য এটি একটি আদর্শ সাপ্লিমেন্ট। কারণ স্পিরুলিনা ক্যাপসুল প্রোটিন ও অ্যাসেনসিয়াল অ্যামাইনো এসিড বিদ্যমান।

গবেষণায় দেখা গেছে. যারা বহুদিন ধরে অ্যালার্জির সমস্যায় ভুগছেন, নিয়মিত স্পিরুলিনা সেবনে ভালো ফল পেয়েছেন। ১৯৭৪ সালে ওয়ার্ল্ড হেলথ অরগানাইজেশনে স্পিরুলিনাকে নিরাপদ সুপার ফুড হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। একজন প্রাপ্তবয়স্ক লোকের ২০০ থেকে ৩০০ মিলিগ্রাম স্পিরুলিনা দৈনিক সেবন করতে পারেন। যা ক্যাপসুল, ট্যাবলেট ও পাউডার হিসেবে পাওয়া যায়। এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। তবে মাত্রাতিরিক্ত সেবনে এলার্জি, বমি বমি ভাব ও অস্বস্তিকর ভাব দেখা দিতে পারে।

তাই এসকল কারণেই, এখন থেকে আলাদিনে পাওয়া যাবে স্পিরুলিনা ক্যাপসুল। একেবারে নিঃসন্দেহে সেবন করতে পারেন আমাদের এই ফুড ক্যাপসুলটি।

গর্ভবতী নারীদের ক্ষেত্রে অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। সে ক্ষেত্রে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ জরুরি। আমরা এই বহুগুণে গুণান্বিত সুপার ফুডটি সম্পর্কে যত জানব ততই বিস্মিত ও মুগ্ধ হব। আর পরিমিত ও নিয়মিত স্পিরুলিনা সেবনে সহজেই পেতে পারি সুস্থ দেহ ও সজীব সুন্দর ত্বক।

স্পিরুলিনা ক্যাপসুল এর কার্যকারিতা

১. WHO (World Health Organization)  এর মতে, দীর্ঘস্থায়ী স্পিরুলিনা গ্রহণে শরীরের আর্সেনিক দূষণ ৪৭ % ও HIV-1 হ্রাস পায়। 

২. Atherosclerosis (এথেরোস্কলেরোসিস) এবং পরবর্তী স্ট্রোক প্রতিরোধে ৩৩% – ৪৮% কার্যকরী।

৩. অ্যান্টি-অক্সিজেন, অ্যান্টি প্রোলিফারেটভ এজেন্ট ফ্যানক্রিয়াটিক সেল বিস্তার হ্রাস করে। 

৪. ভিটামিন বি১, বি২, বি৩, বি১২, কে১, কে২, শক্তি বৃদ্ধি চোখ, মস্তিকের কার্যকারিতা উন্নত করে। 

৫. ৬০% প্রোটিন, অ্যামিনো এসিড ৬৫ % , দুধের চেয়ে ২৬ গুণ ক্যালসিয়াম, পালংশাকের চেয়ে ৩৯০০ % , টফুর চেয়ে ৬০০ % এবং ব্লবেরি চেয়ে ২৮০ % বেশি অ্যান্টি অক্সিডেন্ট বিদ্যমান। 

৬. শরীরের মেটাবলিক শক্তি বাড়য়ে পেশী ক্লান্তি ও অক্ষমতা হ্রাস করে। 

৭. Diabetics & HbA1c কমায়, ভেজিটেরিয়ানদের উচ্চমাত্রায় আয়রণ শোষণে সহায়তা করে। 

৮. Phycocyanin (নীল প্রোটিনরঞ্জক) রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রন করে। 

৯. শরীর ঝাঁকুনি, খিঁচুনি সংক্রামকব্যাধি, ওরাল ক্যান্সার নিরাময়, হিমোগ্লোবিন বৃদ্ধি, টক্সিন বের করে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

১০. জিংক, তামা, লোহা, ম্যাঙ্গানিজ, সেলেনিয়াম, ক্রোমিয়ামের সমপরিমান পুষ্টি রয়েছে।

১১. গাজর থেকে ২৮০০% গুণ বেশি বিটা কেরোটিন  থাকে, ফলে সুস্থ দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি পায়।

১২. কার্ডিওভাসকুলার ফাংশন ও কোলেস্টেরল ৮.৯ % , এল ডি এল ১০.১ % ট্রাইগ্লিসারাইড ১৬.৩ % কমায় এবং এইচ ডি এল ১১.৫ % বৃদ্ধি করে সুস্থ রাখে।

সেবন বিধি

১-২ টি সফট জেল দৈনিক ১-২ বার অথবা অভিজ্ঞ কনসালনেন্ট এর পরামর্শ অনুযায়ী সেব্য।

Subscribe to our Newsletter

সম্পর্কিত আরো লেখা সমূহ