হাতির ফাসি: ইতিহাসের বিরল এক হৃৃদয়বিদারক ঘটনা

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on pinterest

১৯৯৬ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল এক ঘটনা ঘটে, কারন এই দিন পৃথিবীতে প্রথম এবং শেষ কোন হাতির ফাসি দড়িতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড করা হয়। 

আজ আমরা সেই ঘটনার ই বিস্তারিত জানবো। ঘটনাটি আমেরিকার শহর টেনিসে। সেখানকার একটি সার্কাস দলে কাজ করতো ম্যারি নামের একটি হাতি। ম্যারি সার্কাসে দুর্দান্ত সব কাজ করে দর্শকদের মাতিয়ে রাখতো। 

ম্যারিকে দেখতেই সার্কাসে ভিড় হতো বেশি। আর সার্কাস দলের নাম ছিল চার্লি স্পার্ক্স। এই দলের মালিক হাতিদের পুরোন মাহুতকে অপসারন করে নতুন কর্মচারী রেড এল্ডিক্সকে নিয়োগ দেন হাতিদের দেখাশুনা করা এবং সার্কাস দেখানোর জন্য। 

রেড হাতিদের বিষয়ে অতোটা অভিজ্ঞ ছিলনা যতটা দরকার ছিল। এছাড়া অভিজ্ঞতা কম হবার কারনে সে হাতিদের আচরন এবং ইচ্ছে এসব ও ঠিকঠাক বুঝতো না। একদিন খেলার সময় রেড ম্যারির উপরে বসে সার্কাস দেখাচ্ছে। 

সব কিছু ঠিকঠাকই চলছিল। ম্যারি দু পা তুলে পেছনের পায়ে ভর দিয়ে দর্শকদের মনোরঞ্জন করে যাচ্ছে। কিন্তু মাহুত রেড অযথাই ম্যারির কানে লোহার শিক দিয়ে আঘাত করতে থাকে। 

এক সময় ম্যারির মেজাজ চড়ে যায় সে রেডকে টেনে নিচে নামিয়ে পা দিয়ে পিষে মেরে ফেলে। এ ঘটনায় সমস্ত সার্কাস প্রাঙ্গণ এবং শহর জুড়ে ম্যারি বিরোধী আন্দোলন গড়ে উঠে। সবার দাবি হত্যাকারী হাতিকে সাঁজা দিতে হবে। তা না হলে এই আন্দোলন থামবে না। একটি হাতি থেকে একজন মানুষের মূল্য অনেক বেশি। 

কেউই চার্লি স্পার্কসের কোন শো দেখতে যাচ্ছিল না। সার্কাস দলটিই একসময় বন্ধ হয়ে যাবার উপক্রম হল। সার্কাসের মালিক কোনভাবেই জনগনকে বুঝাতে পারছিলেন না যে, ম্যারির এখানে যতোটা দোষ তার চেয়ে বেশি ভুল ছিল মাহুত রেডের। সে অহেতুক বাড়াবাড়ি না করলে ম্যারি এরকম কাজটি ঘটাতো না। ম্যারি একটি অবলা প্রাণী তার দোষ নেই। 

কিন্তু জনগন তা বুঝলো না। শেষে সার্কাসের মালিক সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হলেন ম্যারিকে হত্যা করার। কিন্তু কিভাবে? বিশাল দেহি এশিয়ান এই হাতি এতই বড় ছিল যে তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার পন্থা নিয়েই অনেক ভাবতে হয়েছিল সবাইকে। 

শেষে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় ম্যারিকে ক্রেনে ঝুলিয়ে ফাঁসি দেয়া হবে। তাই নিয়ে আসা হল বিশাল একটি ক্রেন। শহরের বিক্ষুব্ধ নাগরিকদের দাওয়াত দেয়া হল। সবাই মেতে উঠলো এক হৃদয়বিদারক হত্যা প্রত্যক্ষ করতে। সবার চোখ তখন প্রতিশোধের ক্রোধে টগবগ করছে। 

ম্যারিকে অবশেষে বিশাল এক চেইন দিয়ে ক্রেনের হুকে বাধা হল। ক্রেন চালু হওয়া মাত্রই এক টানে ম্যারিকে ২০ ফুট উপড়ে তুলে নেয়া হল। ম্যারি অনেক স্বাস্থ্যবান হওয়াতে ক্রেনের চেইন ছিড়ে ২০ ফুট উপর থেকে পড়ে যায়। এতে ম্যারির মেরুদণ্ড ও পা ভেঙ্গে যায় এবং গলা থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হতে থাকে। 

কিন্তু মানুষগুলোর মন গললো না। আবার ম্যারিকে ক্রেইনের চেইনের সাথে বাধা হইল। থেমে গেলে চলবেনা, শাস্তি নিশ্চিত করতেই হবে। এরপরে ম্যারি ফাঁসির চেইনে ছটফট করতে করতেই মারা গেল। 

আসলে ম্যারি মারা যায়নি, ঐদিন চেইনে ঝুলিয়ে ফাঁসি দেয়া হয়েছিল মানুষের মানবতাকে। আমরা মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব, আর আমরাই মাঝে মাঝে এমন কাজ করি যা আমাদের পৃথিবীর নিকৃষ্ট প্রাণীর থেকেও নিচে নামিয়ে দেয়।  

তাই যেকোন অবলা প্রাণীকে মারার আগে একবার ভেবে দেখুন সৃষ্টির সেরা জীব হয়ে আপনি সবচেয়ে নিকৃষ্ট জীব হয়ে যাচ্ছেন না তো?

Subscribe to our Newsletter

সম্পর্কিত আরো লেখা সমূহ